Prime minister Sheikh Hasina has said from the very beginning

Prime minister Sheikh Hasina has said from the very beginning

Executive Sheik Hasina has said from the earliest starting point the Bangladesh Patriot Gathering (BNP) had an abhorrent goal to make the last broad race sketchy regardless of their interest in the surveys.

In spite of the fact that the BNP had partaken in the decision, they generally had a goal to make the surveys faulty as their ubiquity dropped to the most minimal dimension and got no opportunity to win the appointive race,” she said.

The head administrator said this while tending to a gathering agreed to her by ostracizing Bangladeshi nationals in Munich, Germany on Thursday night. The leader in her lady abroad visits in the wake of expecting office a month ago for the fourth time landed in Munich on Thursday to go to a security meeting.

Bringing up the reasons for goliath annihilation:

Bringing up the reasons for goliath annihilation of the BNP in the last broad races, the head administrator said the BNP won just 28 situates in the 2008 general races and none had brought up issues about the acknowledgement of that race.

“How they expect preferable outcomes over 2008 even in the wake of submitting disorder for the sake of political development in the course of the most recent couple of years,” she said including that individuals remembered the BNP’s fear monger exercises they unleashed the nation over in 2013, 2014 and 2015. The BNP was not true to win the decision as it detected its thrashing, which was the truth, she said.

Khaleda Zia is sentenced for gulping vagrants:

Khaleda Zia is sentenced for gulping vagrants store and Tarique Zia is indicted for carrying 10-truck arms and ammo just as for projectile assault. Along these lines, the unavoidable issue is the reason individuals would give them vote in the races,” she said.

Besides, the BNP handled numerous Jamaat-e-Islami pioneers giving them ‘Paddy Parcel’, the appointive image of the BNP, which was likewise a noteworthy reason for losing open help in the race, Sheik Hasina said.

Outside pastor AK Abdul Momen, leader of All European Awami Class Anil Dasgupta and leader of UK section of Awami Alliance Sultan Mahmud Sharif additionally tended to the program, led by Bangladesh envoy in Germany Imtiaz Ahmed. Pioneers of various sections of Awami Group in European nations welcomed the executive displaying bunches.

Sheik Hasina said the BNP couldn’t make it unmistakable:

Sheik Hasina said the BNP couldn’t make it unmistakable to the general population who might be their executive and who structure the administration in the event that they win the decision.

Sheik Hasina additionally accused the BNP’s assignment exchange as one of the real purposes behind their catastrophe in the race saying the BNP had offered designation to somewhere around at least three people in each voting public.

The BNP was increasingly basic about the Awami Association in the decision crusade as opposed to making individuals mindful of their future arrangement. Be that as it may, individuals of Bangladesh better realize what the Awami Alliance have improved the situation them, the head administrator said.

Sheik Hasina said the Awami Association has given individuals a better life. Amid the AL residencies, month to month salary of the general population has been expanded and they are living in harmony. Their expectation for everyday comforts is getting enhanced step by step, which individuals can get it.

We have given significance on our future arrangement:

Then again, the executive stated, “We have given significance on our future arrangement, giving a spotlight on how we need to see our nation in future. Our past advancement works are particularly noticeable to the general population and we have outfitted our future arrangement in our race statement.”

The Awami Class has earned autonomy and built up the general population’s entitlement to talk in the primary language, the head stated, including that Bangladesh would proceed and none would almost certainly rule it since the AL is presently working for financial liberation of the nation.

Presently, the BNP and their partner the Jatiya Oikya Front (JOF) are attempting to make the 30 December decisions sketchy and documented cases at seven places, the leader stated, including according to race law they can record case in the race council and the AL has no complaint to it.

The debasement of the BNP pioneers are being uncovered

The debasement of the BNP pioneers are being uncovered gradually by US insight and Canada and their archives are the primary confirmations of the claims recorded against Khaleda Zia and her child,” she said.

Sheik Hasina stated, “Ostracize Bangladeshis were dependable with us in all developments and helped us in the battle to build up political rights and nation’s financial advancement.”

She likewise reviewed the job of exiles in the dissent against the severe executing of Bangabandhu Sheik Mujibur Rahman.

An extensive number of the Awami Alliance pioneers and specialists from Australia, Belgium, Denmark, UK, Finland, France, Greece, Hungary, Ireland, Italy, Netherlands, Norway, Portugal, Russia, Spain, Sweden, Scotland, Romania, Bulgaria, USA, Switzerland just as Germany touched base in Munich to welcome the executive.

The head administrator stretched out her appreciation:

The head administrator stretched out her appreciation to the exiles for their die-hard faithfulness to light up the positive picture of Bangladesh abroad and develop a positive assessment of the nation’s greatest advantage.

Sheik Hasina said individuals of each class and segment make their choice precipitously for the Awami Alliance in the last broad decision that drove the gathering to its avalanche triumph.

Provincial and urban individuals, business network, young people and ladies make their choice for the Awami Group with want to take the nation forward to thriving as envisioned by a dad of the country Bangabandhu Sheik Mujibur Rahman.”

Individuals have much desire that the nation would pick up improvement if the Awami Class stays in power and everyone would appreciate the advantage of the advancement, she said.

About the cooperation of the BNP in the last surveys under the flag of Oikya Front, the PM said as the leader of the administration she sat with upwards of 70 ideological groups for discourse.

The head administrator said the most noteworthy number of ideological groups of the nation partook in the decision and more than 80 per cent of voters have practised their establishment which was never observed.

Sheik Hasina said individuals didn’t make their choice:

Sheik Hasina said individuals didn’t make their choice for the BNP as their job in unbridled defilement has been uncovered. They governed the nation for a long time after the ruthless killing of Bangabandhu, however, could offer nothing to the general population aside from killing, military upsets, misrule, defilement, tax evasion and nepotism.

Sheik Hasina said the military rulers after 1975 could offer nothing to the general population with the exception of homicide of the Awami Class pioneers and labourers, upsets in the military, misrule, defilement, illegal tax avoidance and nepotism.

Bringing up the unbridled defilement of the BNP pioneers amid their standard, the PM said it was not the Awami Alliance government, however, US knowledge uncovered their debasement.

The greater part of the primary on-screen:

What’s more, it was not likewise the Awami Alliance, yet overseer government who stopped claims against Khaleda Zia on a charge of debasement. The greater part of the primary on-screen characters of the past overseer government was faithful to the BNP, she said.

Sheik Hasina said Bangladesh would flourish as Bangabandhu had sustained his fantasy with this nation. Like the little girl of Bangabandhu I know his vision and plan to manufacture Bangladesh as a prosperous country,” she said.

The PM expressed gratitude toward the ostracizes who were in the nation amid decision time to participate in the battle for the Awami Group competitors, she said. Sheik Hasina asked the exile nationals to approach with an interest in the Uncommon Financial Zones saying there would have a unique offer for the ostracizes.

Read in Bangla:

কার্যনির্বাহী শেখ হাসিনার প্রথম দিক থেকে শুরু থেকেই বলা হয়েছে, বাংলাদেশ প্যাট্রিয়ট গাদারিং (বিএনপি) জরিপের স্বার্থ সত্ত্বেও শেষ বিস্তৃত জাতি স্কেচির জন্য ঘৃণ্য লক্ষ্য ছিল।

তিনি বলেন, “বিএনপি সিদ্ধান্তে অংশ নিলেও, তারা সর্বদাই সর্বশ্রেষ্ঠ জরিপ করার লক্ষ্য অর্জন করেছিল কারণ তাদের সর্বকালের সর্বনিম্ন মাত্রা হ্রাস পেয়েছিল এবং নিয়োগকারী জাতি জিততে তাদের কোন সুযোগ ছিল না।প্রধান প্রশাসক বৃহস্পতিবার রাতে জার্মানিতে মিউনিখে বাংলাদেশী নাগরিকদের বিদায় জানিয়ে এক সমাবেশে যোগ দেন।

বৃহস্পতিবার মিউনিখে একটি নিরাপত্তা বৈঠকে যাওয়ার জন্য চতুর্থবারের মতো চতুর্থবারের মত অফিসারের প্রত্যাশার প্রত্যাশায় বিদেশি ভদ্রমহিলার নেতা তার সফরে যান।গত বৃহস্পতিবার বিএনপির গলিথাহ ধ্বংসের কারণ তুলে ধরে প্রধান প্রশাসক বলেন, বিএনপি ২008 সালের সাধারণ জোটে মাত্র ২8 টি আসন জিতেছে এবং কেউ এই জাতিটির স্বীকৃতি সম্পর্কে কোনও সমস্যা তুলে ধরেননি।

তিনি বলেন, “সাম্প্রতিক কয়েক বছর ধরে রাজনৈতিক বিকাশের জন্য দুর্যোগ জমা দেওয়ার ফলে ২008 সালের তুলনায় তারা কীভাবে আরও ভাল ফলাফল আশা করে”। তিনি বলেন, বিএনপি এর ভয় মংনার অনুশীলনের কথা স্মরণ করে ব্যক্তিরা এটিকে দেশকে উৎখাত করে।

বিএনপি এই সিদ্ধান্তটি জয় করতে সত্য ছিল না, কারণ এটি হতাশাজনক ছিল, যা সত্য ছিল, তিনি বলেন।
তিনি বলেন, “খালেদা জিয়াকে ভয়ানক দোকানের জন্য জরিমানা করা হয়েছে এবং তারিক জিয়াকে প্রজাপতির আক্রমণের মতোই 10 ট্রাক অস্ত্র ও গোলাবারুদ বহন করার জন্য দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। এই লাইনগুলির পাশাপাশি ব্যক্তিরা জাতিদের ভোট দিতে ভোট দেয়,” বলেছেন তিনি। ।

এ ছাড়া বিএনপি জামায়াত-ই-ইসলামি অগ্রগামীদের হাতে পরিচালনা করে বিএনপি’র নিরপেক্ষ ছবি ‘পaddy পার্সেল’ দিয়েছিল, যা একইভাবে জাতিতে মুক্ত সহায়তা হারাতে একটি উল্লেখযোগ্য কারণ ছিল, শেখ হাসিনা বলেন।

আওয়ামী লীগ নেতা আনিল দাশগুপ্তের নেতা ও আওয়ামী জোটের ইউকে সেক্রেটারি সুলতান মাহমুদ শরীফের নেতার পাশাপাশি জার্মানির ইমতিয়াজ আহমেদ নেতৃত্বে বাংলাদেশ দূতের নেতৃত্বে এই অনুষ্ঠানে যোগ দেন।ইউরোপীয় দেশগুলিতে আওয়ামীলীগের বিভিন্ন বিভাগের অগ্রগামীদের স্বাগত বক্তব্য রাখেন নির্বাহী সম্পাদক মো।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি তাদের নির্বাহী হতে পারে এমন সাধারণ জনগোষ্ঠীকে অনির্দিষ্ট করতে পারে না এবং তারা সিদ্ধান্তটি জিততে প্রশাসনের কাঠামো গঠন করে।শেখ হাসিনা অতিরিক্ত প্রতিবাদে বিএনপির কার্যনির্বাহী বিনিময়ে অভিযুক্তদের মধ্যে অন্তত তিনজনকে পদত্যাগের প্রস্তাব দেওয়ার প্রতিবাদে তাদের বিপর্যয়ের পিছনে আসল উদ্দেশ্য হিসাবে অভিযুক্ত করেন।

আওয়ামী লীগ সম্পর্কে বিএনপির ক্রমবর্ধমান ভিত্তি ছিল ক্রুসেডের পক্ষে, যাতে ভবিষ্যতের ব্যবস্থা সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা যায়। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য অনুযায়ী, আওয়ামী লীগ তাদের পরিস্থিতি উন্নত করেছে কি না তা বাংলাদেশের জনগণের কাছে ভালভাবে বুঝতে পারে।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ ব্যক্তিদের একটি ভাল জীবন দিয়েছে। আওয়ামী লীগের বাসিন্দাদের মধ্যে, সাধারণ জনসংখ্যার মাসিক বেতন বাড়ানো হয়েছে এবং তারা একত্রে বসবাস করছে। দৈনন্দিন আরাম জন্য তাদের প্রত্যাশা ধাপে ধাপে ধাপে ধাপে ধাপে ধাপে ধাপে ধাপে ধাপে উঠছে।

তারপর আবার নির্বাহী বললো, “ভবিষ্যতে আমাদের দেশকে কীভাবে দেখতে হবে সে বিষয়ে স্পটলাইট দিয়ে আমরা ভবিষ্যতের ব্যবস্থাটি গুরুত্ব দিয়েছি। আমাদের অতীতের অগ্রগতির কাজগুলি সাধারণ জনসংখ্যার জন্য বিশেষভাবে লক্ষনীয় এবং আমরা ভবিষ্যতে আমাদের ভবিষ্যত ব্যবস্থার উন্নতি করে ফেলেছি। আমাদের জাতি বিবৃতি।

আওয়ামী শ্রেণি স্বায়ত্তশাসন অর্জন করেছে এবং প্রাথমিক ভাষাতে কথা বলার সাধারণ জনগোষ্ঠীর অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছে, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে যে, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে এবং আওয়ামী লীগ বর্তমানে দেশের আর্থিক মুক্তির জন্য কাজ করছে বলে কেউই এটিকে শাসন করবে না।

বর্তমানে বিএনপি ও তাদের সহযোগী জাতীয় ঐক্য ফ্রন্ট (জেওএফ) 30 ডিসেম্বরে সিদ্ধান্তের স্কেচী এবং সাতটি স্থানে দস্তাবেজ মামলা করার চেষ্টা করছে বলে উল্লেখ করে নেতৃবৃন্দ বলেন, জাতি আইন অনুসারে তারা জাতি কাউন্সিল এবং আওয়ামী লীগের ক্ষেত্রে রেকর্ড করতে পারে। এটা কোন অভিযোগ আছে।

তিনি বলেন, “মার্কিন অন্তর্দৃষ্টি দ্বারা বিএনপি নেতাদের হতাশা ক্রমশ উন্মোচিত হচ্ছে এবং কানাডা এবং তাদের আর্কাইভ খালেদা জিয়া ও তার সন্তানের বিরুদ্ধে দায়ের দাবিগুলির প্রাথমিক নিশ্চিতকরণ”।

শেখ হাসিনা বলেন, “সকল বিকাশে অস্তিত্বশীল বাংলাদেশীরা আমাদের সাথে নির্ভরযোগ্য ছিল এবং রাজনৈতিক অধিকার ও দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি গড়ে তোলার জন্য আমাদের যুদ্ধে সাহায্য করেছিল।বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গুরুতর মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে মতবিরোধে তিনি নির্বাসিতদের চাকরি পর্যালোচনা করেছিলেন।

অস্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, যুক্তরাজ্য, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, গ্রীস, হাঙ্গেরি, আয়ারল্যান্ড, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, নরওয়ে, পর্তুগাল, রাশিয়া, স্পেন, সুইডেন, স্কটল্যান্ড, রোমানিয়া, বুলগেরিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপক সংখ্যক আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ এবং বিশেষজ্ঞরা। সুইজারল্যান্ডের মতো নির্বাহী কর্মকর্তা স্বাগত জানানোর জন্য মিউনিখের ভিত্তি ছুঁড়েছে জার্মানি।

প্রধান প্রশাসক বিদেশে বাংলাদেশের ইতিবাচক ছবি তুলে ধরতে এবং দেশের সর্বশ্রেষ্ঠ সুবিধা সম্পর্কে ইতিবাচক মূল্যায়ন বিকাশের জন্য তাদের মরদেহের কঠোর বিশ্বস্ততার জন্য নির্বাসিতদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিটি শ্রেণী ও সেগমেন্টের ব্যক্তিরা আওয়ামী জোটের শেষ চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে তাদের পছন্দসইভাবে নির্বাচন করে যা সমাবেশকে তার তুষারযুদ্ধে জয়লাভ করে।

প্রাদেশিক ও শহুরে ব্যক্তি, ব্যবসা নেটওয়ার্ক, যুবক ও মহিলা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন দেখে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাইলে আওয়ামী গ্রুপের জন্য তাদের পছন্দ করে।তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ শ্রেণী ক্ষমতায় থাকলে জাতির অগ্রগতির সুবিধার প্রশংসা করা উচিত বলে জনগণের আগ্রহ রয়েছে।

ওআইসি ফ্রন্টের পত্রে বিএনপির শেষ সমীক্ষায় বিএনপির সহযোগিতার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রশাসনের নেতা হিসেবে তিনি বক্তব্যের জন্য 70 মতাদর্শিক দলের ঊর্ধ্বে উঠে বসেছিলেন।প্রধান প্রশাসক বলেন, দেশের আদর্শবাদী গোষ্ঠীর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সিদ্ধান্ত এই সিদ্ধান্তে অংশ নিয়েছে এবং 80 শতাংশ ভোটাররা তাদের প্রতিষ্ঠার অনুশীলন করেছে যা কখনো পালন করা হয়নি।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি তাদের জন্য পছন্দ করে নি, কারণ অনাকাঙ্ক্ষিত অশোভনতা তাদের চাকরি উন্মোচিত হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর নির্মম হত্যার পর তারা দীর্ঘদিন ধরে দেশ শাসন করেছিল, তবে সাধারণ জনগোষ্ঠীকে হত্যার, সামরিক অভ্যুত্থান, কুসংস্কার, দূষিতকরণ, কর ফাঁসি এবং স্বজনপ্রীতির পাশাপাশি সাধারণ জনগোষ্ঠীর কিছুই দিতে পারে নি।

শেখ হাসিনা বলেন, 1975 সালের পর সামরিক শাসক সাধারণ জনগোষ্ঠীর কাছে কিছুই দিতে পারে না, আওয়ামী শ্রেণীর অগ্রগামী ও শ্রমিকদের হত্যার ব্যতিক্রম ছাড়া সামরিক, কুসংস্কার, দূষিতকরণ, অবৈধ করের পরিহার এবং স্বজনপ্রীতিতে আপত্তি।

তাদের মানদণ্ডে বিএনপির অগ্রগতির নির্মম অবাধ্যতা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার নয়, তবে মার্কিন জ্ঞান তাদের দুর্বলতা উন্মোচিত করেছে।

এর চেয়েও বেশি, আওয়ামী লীগও একই রকম ছিল না, তবুও তত্ত্বাবধায়ক সরকার খালেদা জিয়াকে দোষারোপ করার অভিযোগ বন্ধ করে দিয়েছে। তিনি বলেন, প্রাক্তন অধ্যক্ষ সরকারের প্রাথমিক স্ক্রিন অক্ষরের বৃহত্তর অংশ বিএনপির প্রতি বিশ্বস্ত ছিল।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু এই জাতির সাথে তাঁর কল্পনাকে টিকিয়ে রাখতে পেরেছিলেন বাংলাদেশ!তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়েটির মতো আমি তার দৃষ্টিভঙ্গি এবং একটি সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ তৈরির পরিকল্পনা জানি।”

প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী গ্রুপের প্রতিযোগীদের যুদ্ধে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্তের সময় জাতির মধ্যে থাকা অশিক্ষিতদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসামরিক আর্থিক অঞ্চলগুলিতে আগ্রহের সাথে যোগাযোগ করার জন্য নির্বাসিত নাগরিকদের জিজ্ঞাসা করেছেন যে অস্ট্রিবিজদের জন্য একটি অনন্য অফার থাকবে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *